1. sylhetmohanagarbarta@gmail.com : সিলেট মহানগর বার্তা :
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০৯ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
জরুরী নিয়োগ চলছে দেশের প্রতিটি বিভাগীয় প্রতিনিধি, জেলা,উপজেলা, স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস ও বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি বা সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।
প্রধান খবর:
মানবিক সাহায্যের আবেদন বাঁচতে চায় ৮ বছর বয়সী শিশু রিয়া মনি সাংবাদিক গোলজারের মায়ের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন,আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া কবি মুহিত চৌধুরীর জন্মদিন আজ ওসমানী হাসপাতালের কর্মচারীরা ওয়ার্ড মাষ্টার রওশন হাবিব ও ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী আব্দুল জব্বারের হাতে জিম্মি সাংবাদিক তাওহীদকে প্রাণনাশের হুমকিতে অনলাইন প্রেসক্লাবের উদ্বেগ সিলেটে সাংবাদিক তাওহীদুল ইসলামকে প্রাণনাশের হুমকি, থানায় জিডি লিডিং ইউনিভার্সিটি থেকে পেশাগত অসদাচরণের দায়ে স্থপতি রাজন দাস চাকুরিচ্যুত নবগঠিত ২৮, ২৯, ৩০,৪০, ৪১ ও ৪২ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও যুগ্ম আহবায়কের নাম ঘোষণা গোলাপগঞ্জ উপজেলার উন্নয়ন মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান গেয়ে মাতিয়েছেন হিল্লোল শর্মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা’র ৭৭তম জন্মদিন উপলক্ষে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মসূচী

রাজবাড়ীর দাদশী ভূমি অফিস এখন দুর্নীতির আখড়া।

  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৬৯ বার পড়া হয়েছে

বিধান কুমার বিশ্বাস রাজবাড়ী।

অনিয়ম-দুর্নীতি আর ঘুষ লেনদেনের মধ্য দিয়েই চলছে দাদশী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সব কাজ। দাদশী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের এই অবৈধ লেনদেনকে ঘিরে গড়ে উঠেছে শক্তিশালী জালিয়াত চক্র, কর্মচারী-দালাল সিন্ডিকেট।

দাদশী ইউনিয়ন ভূমি দুর্নীতি অষ্ঠোপাসের কাছে জিম্মি সাধারণ মানুষের। জনদুর্ভোগ আর হয়রানির শেষ নেই। দাদশী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের নামে ঘুষ দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।

সরেজমিন পরিদর্শনে ঘুষ, দুর্নীতি আর অনিয়মের এ চিত্র উঠে আসে। নামপ্রস্তাব, সার্ভে রিপোর্ট, নামজারি, ডিসিআর সংগ্রহ, খাজনা দাখিল থেকে শুরু করে সবকিছুতেই ঘুষের কারবার।

বর্তমানে খাজনা প্রদানের জন্য তথ্য নিয়ে অনলাইন করার কথা বলে জনপ্রতি ২০০ করে টাকা নেওয়া হয়েছে। এই দুই শত করে টাকা নেওয়ার কোন কথা নেই বা এখতিয়ার নেই।
দাদশী ভূমি অফিসে কর্মকর্তাগণ ৪ নং ওয়ার্ডে সর্ব সাধারণের নিকট হতে টাকা নেওয়া হয়েছে।

দাদশী ইউনিয়নে নির্ভেজাল জায়গা কিনলেও বিনা হয়রানিতে ওই জায়গার মালিক হওয়া কষ্টকর। ভেজাল থাকলে তো কোনো কথাই নেই। ত্রুটি সারাতে পোহাতে হয় অন্তহীন দুর্ভোগ।

জমির নিবন্ধন, খাজনা প্রদান, দাখিলা গ্রহণ, পর্চা, নামজারি, খতিয়ান ইস্যু ইত্যাদি কাজ সারতে মানুষের জায়গার মালিক হওয়ার সাধ মিটে যায়।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, নামজারি করার জন্য চার থেকে পাঁচ হাজার করে টাকা নেওয়া হয়। এবং বর্তমানে অনলাইনের জন্য টাকা নেওয়ার কথা না থাকলেও গ্রাহক প্রতি ২ শত ৩ শত করে টাকা নেওয়া হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান কি হচ্ছে দাদশী ইউনিয়ন ভূমি অফিসে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক, দুদক ও বিশেষ সংস্থার আকর্ষণ করে সূত্রগুলো জানায়। পৌর ভূমি অফিসের সেবা কার্যক্রম গতিশীলতা ও মান সমুন্নত রাখতে মাঠ পর্যায় সংশ্লিষ্টদের উৎকোচ বাজি ও অনিয়ম রাশ টেনে ধরা দরকার।

সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি নিয়েছেন। জেলা প্রশাসন এ ব্যাপারে সোচ্চার। কিন্তু মাঠ পর্যায়ের ভূমি অফিস গুলো দুর্নীতির আখড়া ভেঙ্গে দিতে মাঠ পর্যায়ের দুর্নীতিবাজদের ও তাদের অবৈধ অর্থ হাতিয়ে নেবার পদ্ধতির বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন প্রশাসনকেই পদক্ষেপ নিতে হবে বলে জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: এন আর