1. sylhetmohanagarbarta@gmail.com : সিলেট মহানগর বার্তা :
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৮:২৩ অপরাহ্ন
ঘোষণা:
জরুরী নিয়োগ চলছে দেশের প্রতিটি বিভাগীয় প্রতিনিধি, জেলা,উপজেলা, স্টাফ রিপোর্টার, বিশেষ প্রতিনিধি, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, ক্যাম্পাস ও বিজ্ঞাপন প্রতিনিধি বা সাংবাদিক নিয়োগ চলছে।
প্রধান খবর:
মানবিক সাহায্যের আবেদন বাঁচতে চায় ৮ বছর বয়সী শিশু রিয়া মনি সাংবাদিক গোলজারের মায়ের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন,আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া কবি মুহিত চৌধুরীর জন্মদিন আজ ওসমানী হাসপাতালের কর্মচারীরা ওয়ার্ড মাষ্টার রওশন হাবিব ও ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারী আব্দুল জব্বারের হাতে জিম্মি সাংবাদিক তাওহীদকে প্রাণনাশের হুমকিতে অনলাইন প্রেসক্লাবের উদ্বেগ সিলেটে সাংবাদিক তাওহীদুল ইসলামকে প্রাণনাশের হুমকি, থানায় জিডি লিডিং ইউনিভার্সিটি থেকে পেশাগত অসদাচরণের দায়ে স্থপতি রাজন দাস চাকুরিচ্যুত নবগঠিত ২৮, ২৯, ৩০,৪০, ৪১ ও ৪২ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের আহবায়ক ও যুগ্ম আহবায়কের নাম ঘোষণা গোলাপগঞ্জ উপজেলার উন্নয়ন মেলার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান গেয়ে মাতিয়েছেন হিল্লোল শর্মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা’র ৭৭তম জন্মদিন উপলক্ষে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মসূচী

বাবা মেয়ের দেখা(১৭)বছর পর খুশিতে আত্মহারা পরিবার।

  • প্রকাশিত: বুধবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৮৮ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক
মাত্র (৮) বছর বয়সী মেয়েকে ঢাকা শহর দেখাতে নিয়ে যান বাবা। কাজের ব্যস্ততা থাকায় তাকে আত্মীয়ের বাসায় রেখে চলে যান। কিন্তু ফিরে এসে মেয়েকে আর পাননি। খুঁজতে থাকেন বিভিন্ন জায়গায়। আদরের সন্তানও খুঁজে বেড়িয়েছেন বাবাকে। অবশেষে (১৭) বছর পর দেখা হলো বাবা-মেয়ের। মেয়েকে পেয়ে খুশিতে আত্মহারা পুরো পরিবার।
ফেসবুকের কল্যাণে গতকাল শনিবার রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকায় মেয়ে তানিয়া আক্তারের সন্ধান পান বাবা। তার বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায়। বাবার নাম মো. সুন্দর আলী।

বর্তমানে তানিয়ার স্বামী রয়েছেন। তার স্বামীর নাম মো. আনোয়ার হোসেন। স্বামীর সঙ্গেই আখাউড়া পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকায় থাকেন তিনি। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

তানিয়ার বাবা সুন্দর আলী জানান, ঢাকায় একটি বাস কাউন্টারে চাকরি করতেন তিনি। (২০০৪) সালে মেয়েকে ঢাকা শহর দেখাতে নিয়ে যান। প্রথমে তাকে নিজ বোনের বাসায় রাজাবাজার নেন। এরপর ফুফুর বাসায় আগারগাঁও নেয়া হয়। কাজ থাকায় মেয়েকে রেখে বেরিয়ে যান তিনি।

কিছুক্ষণ পর ফুফুর মেয়ের সঙ্গে স্কুলে গেলে আর ফিরে আসেননি তানিয়া। সন্ধ্যা পর্যন্ত না ফেরায় বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও কোথাও পাওয়া যায়নি। মেয়ের সন্ধানে মাইকিং ও পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। পাশাপাশি থানায় জিডি করা হয়।

তানিয়া জানান, স্কুলের সিকিউরিটি তাকে ভেতরে ঢুকতে দেননি। পরে তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকেন। রাস্তা-ঘাট না চেনায় একটি বাসে করে সংসদ ভবনের কাছে আসেন। সেখানে একটি দোকানে টেলিভিশন দেখতে দেখতে রাত হয়ে যায়। তখন বাসায় ফেরার জন্য অনেক কান্নাকাটি করেন। কিন্তু ঠিকানা বলতে না পারায় তাকে বাসায় নিয়ে যান একজন সনাতন ধর্মাবলম্বীর লোক। পরদিন তাকে বাবার কাছে পৌঁছে দিতে অনেক জায়গায় খোঁজ করেন।

তানিয়া বলেন, বাবাকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে কলাবাগান এলাকায় আরজুদা খাতুন মিলন ও তার ছেলে রিপনের সঙ্গে দেখা হয়। তারা আমাকে তাদের বাসায় নিয়ে যান। এরপর থেকে তারা আমাকে আদর-যত্নে বড় করে তোলেন। আমি রিপনকে বাবা বলে ডাকি। তারা আমাকে বিয়েও দেন। রিপনের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার রায়তলা গ্রামে।

তিনি আরো বলেন, স্বামী আনোয়ার হোসেনের ফেসবুক আইডিতে আমার মায়ের ছবিসহ একটি পোস্ট দেয়া হয়। সেই সূত্র ধরে আত্মীয়-স্বজনের সহায়তায় পরিবারকে খুঁজে পাই।

দীর্ঘ ১৭ বছর পর মেয়েকে খুঁজে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তানিয়ার বাবা ও ছোট বোন। বাবা ও বোনকে দেখে চিনতে পারেন তানিয়া।

তানিয়ার স্বামী আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি সবকিছু জেনেই তানিয়াকে বিয়ে করি। বিয়ের পর তার পরিবারের সন্ধান পেতে অনেক চেষ্টা করা হয়। আল্লাহর অশেষ রহমত থাকায় সেই ইচ্ছে পূরণ হয়েছে। আমি খুবই খুশি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: এন আর